পাঠক প্রোফাইল

সাহিত্যের সাথে পরিচয় মায়ের হাত ধরে

শনিবার, ১৬ জানুয়ারি ২০২১ | ৬:১২ অপরাহ্ণ | 206 বার

সাহিত্যের সাথে পরিচয় মায়ের হাত ধরে

দেশের অন্যতম সেরা সৃজনশীল প্রকাশনা প্রতিষ্ঠান ভাষাচিত্র। প্রতিষ্ঠার পর থেকেই নিজস্ব চিন্তা-চেতনা, নতুনত্ব আর আদর্শিক ভাবনা থেকে এই প্রতিষ্ঠানের যাত্রাপথ চলমান। সামাজিক যোগাযোগ্যমাধ্যম ফেসবুকে ‘ভাষাচিত্র বুক ক্লাব’-নামের একটি গ্রুপের মাধ্যমে সারাদেশের বইপ্রেমী পাঠকদের সঙ্গে একটি যোগসূত্র স্থাপনের অক্লান্ত চেষ্টা করে যাচ্ছে প্রতিষ্ঠানটি।
এই গ্রুপে পাঠকদের নিয়ে একটি ইউনিক আয়োজন পাঠক প্রোফাইল। পাঠকগণ স্বতঃপ্রণোদিত হয়ে নিজের সম্পর্কে গ্রুপে পোস্ট দেন। নির্বাচিত পোস্টগুলো আমরা দেশের বই পোর্টাল-এ প্রকাশ করি। আজ প্রকাশিত প্রকাশিত হলো  রাকিব আহমেদ-এর প্রোফাইল


পরিচয় দেবার মতো বৃহৎ কিছু নেই, অতি সামান্য আমার জন্ম শ্রাবণের কোনো এক মধ্যদুপুরে। বলা হয় ফলেই গাছের পরিচয়। সেই হিসেবে শ্রাবণ মাসের অন্যতম পরিচয় হলো তার ক্রমাগত ঐচ্ছিক জলধারা। তবে নিয়মের ব্যাতিক্রম করেই আমার জন্ম হলো এক রৌদ্রজ্বল দুপুরে। মা এর কাছে শুনেছি খুব কষ্ট দিয়েই জন্ম নিয়েছি। তাই হয়তো কষ্ট আর আনন্দকে দুই হাতে নিয়ে সমান ভাবে চলতে পারি।

বর্তমান নিবাস ব্যস্ত শহর ঢাকার বাসাবো নামের এক ঠিকানায়। ইংরেজি সাহিত্যে ঝুলন্ত মাস্টার্সে পড়াশোনা করা আমি এখনো বাবার হোটেলে আরাম আয়েশে বইয়ের পাতায় জীবনকে উপভোগ করছি, শূন্য হাতে আপন নিয়মে।

সাহিত্যের সাথে পরিচয়ের সূচনা আমার মা এর মাধ্যমে৷ খুব ছোটবেলা থেকে রবীন্দ্রনাথ, নজরুল ও শরৎ ত্রয় এর সাথে আমার পরিচয়। ধীরে ধীরে বেড়ে ওঠার সাথে সাথে সাহিত্যের সঙ্গে আমার বন্ধন আরো শক্ত হতে থাকে। আমার প্রতিটা পাঠ্য বই আমার কাছে এক একটা সাহিত্য। পড়ার বইয়ের থেকে তাদের সাহিত্য হিসেবে কল্পনা করতেই বেশি সাচ্ছন্দ্যবোধ করি।

প্রতিটা মানুষের একটা নিজস্ব জগত থাকে যেখানে বাহিরের মানুষের বিচরণ খুব সীমিত। ভালো লাগে সেই সীমিত কাতারে থেকে মানুষের সেই আপন জগতের পথিক হয়ে তাদের আনন্দ দুঃখ কষ্টের সাক্ষী হতে পেরে। মানুষকে খুব ভালো পড়তে পারি বলেই হয়তো এই সেই গুপ্ত দরজায় নিজের পদছায়া ফেলতে পারি।

আমাকে যদি বলা হয় বই পড়ার পর কোন জিনিস তোমার সবচেয়ে প্রিয় আমি বলব, “নদী”। অসম্ভব ভালো লাগে এই নির্ঝরিনীকে। মাঝে মাঝে তাদের জলজ্যান্ত রক্ত মাংসের মানুষ মনে হয়। ইচ্ছে হয় কোনো এক মাঝ রাতের জোৎস্নায় একটা পালহীন ছোট্ট নৌকায় করে মাঝনদীতে যেয়ে চাঁদের আলোয় গাত্রধৌত করতে, তবে সেই অমায়িক দৃশ্য উপভোগ করতে হবে সম্পূর্ণ একা নিভৃতে।

সাহিত্যকে নিয়ে স্বপ্ন আমার অনেক, লেখক হতে ইচ্ছে হলেও সেই দুঃসাহস করার মতো মনোবল এখনো জন্মায় নি বরং তা অতি সুপ্ত অবস্থায় মনকোঠরে নিজেকে বন্দী করে রেখেই সাহিত্যের প্রতি তার অনুরাগকে প্রকাশ করে যাচ্ছে। হয়তো কোনো একদিন সে বেরিয়ে এসে নিজের একান্ত অস্তিত্বের জানান দিবে। তবে সেটা কবে আমি নিজেও জানি না।

সাহিত্যের প্রতি সম্মান আর ভালোবাসা থেকেই স্বপ্ন দেখি একটা ইউটিউব মাধ্যমের, যেখান থেকে বইয়ের কথা ছড়িয়ে দিতে পারব সারা বিশ্বব্যাপী। কল্পনাপ্রবণ মানুষের কাছে স্বপ্ন নিছক মরিচীকার থেকেও ধোঁয়াশে, তবুও স্বপ্ন দেখতে তো আর মানা নেই! তবে এর সাথে চাই নিজের আত্মত্যাগ আর ইচ্ছার সাথে পরিশ্রমের জোর। হয়তো একদিন লেখক না হতে পারলেও অন্য কোনো লেখকের কলমসন্তান দেরকে পরিচয় করে দিতে পারব সবার মাঝে।


দেশের বই পোর্টালে লেখা ও খবর পাঠাবার ঠিকানা : desherboi@gmail.com

Facebook Comments Box