দেশের বই ঈদ সাময়িকী

সাইয়্যিদ মঞ্জু’র একগুচ্ছ কবিতা

বুধবার, ১৯ মে ২০২১ | ২:৫৭ পূর্বাহ্ণ | 157 বার

সাইয়্যিদ মঞ্জু’র একগুচ্ছ কবিতা

একগুচ্ছ কবিতা
সাইয়্যিদ মঞ্জু


 

সমুদ্রশিরা

জেলে ঘরের জোয়ান পুত জলেকুলে বাস, এই উভয়ত দিনকাল যায় বারোমাস। ভয়াল কত ঝড়তুফান ডরে নারে মন, বড় বিচিত্র দরিয়া পার জাইল্যা জীবন। গুলির ধার সোনারচর চালনার বয়া, শিকার নেশায় ঘুরি যত সমুদ্রের কায়া। ওরে জাল ফেলি মাছ ধরি আল্লাহর নামে, খোয়াজ খিজির নাম স্মরি যত কাজ কামে। গাই গুনগুনে পাটাতনে শেফালির গান, আহ্ ভাটিয়ালি জারি সারি কত সুরে টান। প্রখর রোদ বাদল জল ঢেউয়ে ঢেউয়ে, মাস্তুল হাতে জোয়ারভাটা তরি যাই বেয়ে।

জনম জনম স্রােত টানে পূর্বাপর পথে, জীবনচলার চিহ্ন আঁকা দেহ মনোরথে। কত স্মৃতি, কত কথা এই দরিয়ার সনে, যত আছে হারানোর ব্যথা লুকিয়েছি মনে। শিরায় আমার বহে শুধু নোনা সমুদ্দুর, সাগর পারে মায়ার টান আয়ু যত দূর।

 

জলের হালচাল

গর্জন কাঠের বোট বানাইছি কি সুন্দর লাল। নয়া ইঞ্জিন বসাই দিব ইলিশ মাছের জাল। টাইগার কোড় সুতা আনলাম চাঁটগাত্তু কিনে। নাইয়া ধুমধাড়াক্কা কাজকাম রাতনিশি দিনে। ধারকর্য করে কত ধরলাম কারবারে হাল। জাইল্যা ঘরের পুত শিখি জলের হালচাল। হানডিভরা শিরনি-রাঁধি পাড়ার মানুষ খায়। মালেক শাহের দোয়া চাইব কতুবদিয়া যায়। সোনার-রুপার পানি ছিটে ভিজিয়ে দিলাম তরি। বিসমিল্লাহ সাগরযাত্রা ইলিশ আনব ধরি।

আশা যত এ মনের-অন্দরেতে আনচান করে, ইলিশ মৌসুম শেষে এবার বউ তুলিব ঘরে। মাছ বেচে শাড়ি-চুড়ি, দুলগয়না নাকের ফুল। আর কিছুদিন ধৈর্য ধর ভালোবাসার পারুল।

 

সোনাবউ

ধলপহরে উঠিও নিদ্রালস যত থাক চোখে, রাঁধিও গরমভাত শুঁটকি ভর্তায় দিব মুখে। পান-চুন সুপারিতে পানখিলি যতনে বানিও, ঘুমঘোরে থাকি যদি সোনাবউ আমারে ডাকিও। কৈতরদিয়ার খালে পুতেছি চরজাল খুঁটি, দেরি হয়ে যায় যদি দস্যুদল মাছ নেবে লুটি। রোদে দিও ছুরি মাছ দাঁড়কাকে রাখিও নজর, উঠানেতে ঝাড়– দিও লক্ষ্মীবউ না হতে ফজর।

ঘামফুল গায়ে শোভা ভোরসাঁঝে রথের বাগান, বাঁকে বাঁকে রচে যায় অগোচরে জীবনের গান। জলকুল প্রেমফুল ফুটে আছে এ প্রান্তর ধুধু, ভালোবাসা মনঘরে অবিরল প্রিয়তম বঁধূ।

Facebook Comments Box