শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করলেন খন্দকার মাহমুদুল হাসান

শনিবার, ৩০ জানুয়ারি ২০২১ | ৩:৩৯ অপরাহ্ণ | 150 বার

শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করলেন খন্দকার মাহমুদুল হাসান

খ্যাতিমান শিশু-সাহিত্যিক ও গবেষক খন্দকার মাহমুদুল হাসান আর নেই । বৃহস্পতিবার রাতে তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। বয়স হয়েছিল ৬১ বছর।

কিছুদিন ধরে রাজধানীর গ্রিন লাইফ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন তিনি। ২৫ জানুয়ারি তাকে লাইফ সাপোর্টে নেওয়া হয়।

খন্দকার মাহমুদুল হাসানের মৃত্যুর খবরটি দেশের বইকে নিশ্চিত করেছে তার পরিবার।

শিশুসাহিত্য, ভ্রমণ, প্রবন্ধ, গবেষণাসহ শিল্প-সাহিত্যের নানা অঙ্গনে তার পদচারণা ছিল। শিশুসাহিত্যের মধ্যে হাসির গল্প, রহস্য উপন্যাস, ইতিহাস ও বিজ্ঞান।

১৯৫৯ খ্রিষ্টাব্দে ২৫ আগস্ট রংপুর শহরে জন্মগ্রহণ করেন খন্দকার মাহমুদুল হাসান । তার পৈত্রিক নিবাস পাবনা জেলায় । তিনি কুষ্টিয়া জিলা স্কুল, কুষ্টিয়া সরকারি কলেজ ও বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষালাভ করেন।

খন্দকার মাহমুদুল হাসান ছিলেন একজন সার্বক্ষণিক লেখক। সরকারি প্রতিষ্ঠানে নির্বাহী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। বাংলাদেশ ও পশ্চিমবঙ্গের বিভিন্ন এলাকায় সরেজমিনে ঘুরে তিনি ইতিহাস ও পুরাকীর্তি বিষয়ক গবেষণাকাজ পরিচালনা করেছেন। এর বাইরে সাহিত্য, শিশুসাহিত্য, সাময়িকপত্র ও চলচ্চিত্র নিয়ে গবেষণা করেছেন তিনি। বাংলাদেশ এশিয়াটিক সোসাইটি প্রকাশিত বাংলাদেশের জাতীয় জ্ঞানকোষ বাংলাপিডিয়া এবং বাংলাদেশ শিশু একাডেমি প্রকাশিত শিশু বিশ্বকোষ রচনায় তিনি অংশগ্রহণ করেছেন।

ইতিহাস, বিজ্ঞান, পুরাকীর্তি, চলচ্চিত্র, গল্প, উপন্যাস, গোয়েন্দা কাহিনি প্রভৃতি মিলিয়ে শতাধিক বই লিখেছেন। ছোটোদের জন্য লিখেছেন ৯০ টি বই, যার মধ্যে আছে মুক্তিযুদ্ধের গল্প, ভয়ের গল্প, হাসির গল্প, জীবনবোধসম্পন্ন গল্প, রূপকথার গল্প, গোয়েন্দাকাহিনি, রহস্যোপন্যাস, সায়েন্স ফিকশন, চোরের গল্প, পুলিশ কাহিনি প্রভৃতি।

লিখেছেন ইতিহাস বিষয়ক ২৬ টি বই, ২২টি কিশোর উপন্যাস ও ৩১ টি টি গল্পের বই। ঢাকার পার্ল পাবলিকেশন্স থেকে প্রকাশিত দুই খণ্ডের ‘বাংলাদেশের পুরাকীর্তি কোষ’, দিব্যপ্রকাশ থেকে দুই খণ্ডে প্রকাশিত ‘প্রথম বাংলাদেশ কোষ’,’বাংলাদেশের স্বাধীনতার নেপথ্য -কাহিনি’, ঐতিহ্য থেকে প্রকাশিত ‘ঢাকা অভিধান’,’চলচ্চিত্র’, বাংলাদেশ শিশু একাডেমি থেকে প্রকাশিত ‘প্রাচীন বাংলার আশ্চর্য কীর্তি’, কথাপ্রকাশ থেকে প্রকাশিত ‘মুক্তিযুদ্ধের চলচ্চিত্র’,’হিব্রু থেকে ইহুদি’,’ বাংলাসাহিত্যে মুসলিম অবদান’, ‘যেমন করে মানুষ এলো’, ‘সেরা কিশোর গল্প’, ‘কাঠমান্ডুর মূর্তি রহস্য’, ‘ইতিহাসের সেরা গল্প’ প্রভৃতি তার লেখা উল্লেখযোগ্য গ্রন্থ।

খন্দকার মাহমুদুল হাসান দু’বার বাংলাদেশ শিশু একাডেমী প্রদত্ত অগ্রণী ব্যাংক শিশুসাহিত্য পুরস্কার পেয়েছেন । তিনি এম নুরুল কাদের শিশুসাহিত্য পুরস্কারও পান দু’বার । ভারত থেকে পেয়েছেন যতীন্দ্রমোহন রায় স্মৃতি পুরস্কার (টুকলু পুরস্কার)।


দেশের বই পোর্টালে লেখা ও খবর পাঠাবার ঠিকানা : desherboi@gmail.com

Facebook Comments Box