ঈদ সাময়িকী ॥ গুচ্ছকবিতা

রহমান হেনরীর কবিতা

শনিবার, ০১ আগস্ট ২০২০ | ৬:৪৮ অপরাহ্ণ | 392 বার

রহমান হেনরীর কবিতা

॥ রহমান হেনরী ॥

 

ইশারা

ফিরোজা পাথর,
তুমি স্থির হও— অঙ্গুরীয় শোভাবর্ধনে,
এখনও তরুণ-তুর্কি রয়েছে সময়;

এখনও সম্ভব:
বৃদ্ধদের ঘা-মেরে বাঁচানো যেতে পারে।

চৌদ্দ বছর— খুব সামান্য ব্যাপার নয়;
তবু এই সংখ্যাটির যাদুকরী
তাৎপর্য রয়েছে— প্রতিবিপ্লবে।

কিছুকাল বসে থাকো হাতের আঙুলে।

উচ্ছ্বাসের কিছু নেই। মানব-শরীরে,
একমাত্র উদ্দেশ্যপ্রণোদিত অঙ্গ— এই হাত,
ভরসা রাখো: হাতের উপর। ফিরোজা পাথর,

পলায়নপর এই পৃথিবীর পথগুলো
পাল্টে দিতে— হাতের ইশারাটুকু লাগে।

 

 

সেরেনাদ

মৃদু বাতাসেই ফেঁড়ে যাচ্ছে কলাপাতা
গ্রীষ্মে-শীতে মানুষের একমাত্র কাঁথা

আমার তো সুই নাই, সুতা আরও দূরে
তবু, নিদ্রা গাঢ় হচ্ছে রাজ-অন্তঃপুরে!

মৃদুমন্দ বসে নেই, সংগঠিত ঝড়ে
আমার একেলা মন ফড়ফড় করে

যখন মাটিতে জো; বলদের হাল
দুমদাম ফেলে দিচ্ছে কাঁধের জোয়াল

কৃষি তো হবে না, বন্ধু, গরু উচাটন
ফড়ফড় করে ওঠে চাষাবাদী মন

আসছে তুমুল ঝড়— বেড়ার অভাবে
ক্ষেত ও ফসল সবই নস্যাতে যাবে?

ঝড়ের উদ্দেশে, এসো, গাই সেরেনাদ:
‘আদিপর্বে উপড়ে ফেলো— নিদ্রাপ্রাসাদ’!

 

ভ্রান্তিকুসুম

প্রলোভ জাগা
মমতাফুল,
কাঁটাই তোমার অধিক দড়!

প্রণয়, তুমি
একবিংশে
দামোক্লেসের তরবারি?

যে দল প্রেমের,
ঘৃণার যে দল;
দ্বিতীয়টাই সবচে’ বড়—

আমি কেবল
গন্ধ শুঁকেই
ধাঁধার দেয়াল ভাঙতে পারি।

মায়াকলস,
তোমার ভিতর
বিষ ও রক্তপাতের নেশা;

পান করে যায়
মাতাল প্রেমিক
—আত্মঘাতি, মৃত্যুঘেঁষা!

 

পলাতকা পৃথিবীকে

পালাতে চাও?
পালিয়ে যাওয়া সহজ কী আর আছে
মেঘ পালিয়ে, ফিরলো— জলের কাছে

ঊর্ধশ্বাসে দিগন্তহীন নাও
ছুটছে— তবু, দেখলো: বুকেই জমা
হারান মাঝির পুরনো সেই দাঁড়

সব কাহিনীই করছো অস্বীকার?

নিজের ডানা, নিজের দিকেই মেলে
পালাতে চাও? পলায়ন তো ফাঁদও

স্তব্ধ পুকুর। জল— কী স্বচ্ছতোয়া!
নিস্তরঙ্গ জলের জাজিম ফেলে
আকাশ পারে দৌড়ে-যাওয়া চাঁদও
[হায় পলায়ন] —পুকুর জলেই শোয়া!

 

মোনাজাত

অনেকগুলো সহস্রাব্দ কেটে গেল। মানুষের দুনিয়ায় বিচার-অবিচার

চলছেই— মাবুদ, এখনও তোমার শেষবিচার শুরু হলো না! তোমার সাত

দোজখ, আট বেহেস্ত, বলতে গেলে, একদম আব্দুল্লাহবিহীন— কত সহস্র

বছরই না তোমার ফিরিস্তাগণ রক্ষণাবেক্ষণ করছে— ওইসব বিপুলায়তন

যন্ত্রণাগার, দিকচিহ্নহীন আরামায়েসকুঞ্জ!

 

ডিজিটালে, নিখিলতরঙ্গে লটকেপড়া পৃথিবীর দেশে দেশে, রাজাদের

প্রতিশ্রুতির অঞ্জলি গলিয়ে, টুপটাপ খসে পড়ছে: কর্মহীন কোটি কোটি

ছেলেমে’— হে পরোয়ার দিগার, তুমি তো দয়াময়, অসীমের লীলাসমুদ্র—

ফিরিস্তাগণের সহায়ক হিসেবে, এইসব ছেলেমে’দের, অন্তবর্তীকালীন একটা

এমপ্লয়মেন্ট কি দেয়া যায় না? মাবুদ!

 


দেশের বই পোর্টালে লেখা পাঠাবার ঠিকানা : desherboi@gmail.com

Facebook Comments