মেডিকেল রিপ্রেজেন্টেটিভদের পেশাগত দিক নির্দেশনামূলক প্রয়োজনীয় গ্রন্থ

রবিবার, ২৯ ডিসেম্বর ২০১৯ | ১:৪৮ পূর্বাহ্ণ | 58 বার

মেডিকেল রিপ্রেজেন্টেটিভদের পেশাগত দিক নির্দেশনামূলক প্রয়োজনীয় গ্রন্থ

প্রতিটি প্রফেশনেরই রয়েছে কিছু বেসিক রুলস। যে রুলসগুলো অধিগত না করে মাঠে নেমে গেলে পদে পদে হোঁচট খেতে হয়। ফলে পেশাগত জীবনে উন্নতি সোনার হরিণ হয়ে ওঠে। পাশাপাশি পেশাজীবীর মানসিক জীবনও ক্ষতিগ্রস্ত হয়। এর জন্য যে কোনো কাজকে পেশা হিসেবে গ্রহণ করার আগে তার বেসিক কৌশলগুলো রপ্ত করা জরুরি। তাতে কর্মক্ষেত্রে উন্নতির সম্ভাবনা জিইয়ে রাখার পাশাপাশি পেশাজীবীর মনোদৈহিক সুস্থতাও জারি থাকে।
বাংলাদেশে ‘মেডিক্যাল রিপ্রেজেন্টেটিভ’ এখন একটি সম্মানজনক আকর্ষণীয় পেশা। মজার ব্যাপার যেকোনো বিষয়ে উচ্চশিক্ষাধারীরা এ পেশায় আসতে পারেন। লোভনীয় স্যালারি ও ধাপে ধাপে উচ্চ পর্যায়ে উঠে যাওয়ার সুযোগ থাকার পরিপ্রেক্ষিতে এখন অনেকেই এ ক্ষেত্রটি কাজ করতে আগ্রহী হয়ে উঠেছেন। দেশের প্রায় দুইশতাধিক ফার্মাসউিটিক্যালস কোম্পানি তাদের ওষুধ বিপণনের জন্য রিপ্রেজেন্টেটিভ নিয়োগ করে থাকে। এই রিপ্রেজেন্টেটিভদের ওপরই নির্ভর করে বাজারে কোম্পানিগুলোর ওষুধপণ্যের বিস্তারের সম্ভাবনা। তাই ফার্মসিউটিক্যালস কোম্পানিগুলোর কাছে ‘মেডিক্যাল রিপ্রেজেন্টেটিভ’ গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ, তাদের স্বার্থেই।
বাংলাদেশসহ সারাবিশ্বে প্রফেশনাল সেলস ম্যানেজমেন্ট প্র্যাকটিস করা হয় এমন ক্ষেত্রগুলোর মধ্যে ফার্মাসিউটিক্যাল ইন্ডাস্ট্রি অন্যতম। ওষুধের প্রধান ক্রেতা রোগী হলেও ওষুধ কোম্পানিগুলোর টার্গেট থাকে ডাক্তার ও ওষুধ বিক্রেতাদের ওপর। যেহেতু ব্যক্তিপর্যায়ে বিক্রি এই শিল্পের মূল চালিকাশক্তি, ঠিক সে রকম মেডিক্যাল রিপ্রেজেন্টেটিভদের দক্ষতা, সৌন্দর্যবোধ আর বিচক্ষণতার উপর নির্ভর করে ওষুধ প্রস্তুতকারী ও বিপণনকারী প্রতিষ্ঠানগুলোর আর্থিক সাফল্য। বাংলাদেশে প্রায় অর্ধলক্ষ মেডিক্যাল রিপ্রেজেন্টেটিভ কর্মরত আছেন, যাদের সংখ্যা সংগত কারণেই ক্রমবর্ধমান। সে ক্ষেত্রে আমাদের দেশে প্রতিটি ফার্মাসিউটিক্যাল কোম্পানি তাদের রিপ্রেজেন্টেটিভদের নিয়োগপরবর্তী সময়ে কিছু বেসিক ট্রেনিং দিয়ে থাকে যাতে কর্মক্ষেত্রে প্রবেশের পর তাদের আর কোনো সমস্যায় পরতে না হয়। কিন্তু অধিকাংশ ক্ষেত্রেই সেসব প্রশিক্ষণ হাতে-কলমে সঠিকভাবে দেয়া হয় না বলে তাতে সবিশেষ উপকার হয় না। প্রতিনিয়ত তাই রিপ্রেজেন্টেটিভদের সমস্যায় পড়তে হয়। সে ক্ষেত্রে ডা. পিনাকী ভট্টাচার্যের ‘মেডিক্যাল রিপ্রেজেন্টটিভ : সাফল্যের তত্ত্ব-তালাশ’ বইটি তাদের জন্য হয়ে উঠতে পারে যথাযোগ্য গাইডলাইন। তাদের সাফল্যের নেপথ্যের কৌশলগুলো সন্নিবেশিত হয়েছে এই গ্রন্থে। ডা. পিনাকী ভট্টাচার্য চিকিৎসাশাস্ত্রে শিক্ষাজীবন সমাপ্ত করলেও চিকিৎসাকে পেশা হিসেবে গ্রহণ করেননি। পরিবর্তে ঔষধ বিপণনকেই পেশা হিসেবে গ্রহণ করেন পরম মমতায়। যার ফলশ্রুতিতে আজ তিনি একজন সফল ফার্মা-এক্সিকিউটিভ। নিজের পেশাগত জীবনের অভিজ্ঞতা, কর্মক্ষেত্রের নানা প্রতিবন্ধকতা পর্যবেক্ষণ করে লিখেছেন ‘মেডিক্যাল রিপ্রেজেন্টেটিভ : সাফল্যের তত্ত্ব-তালাশ’ শীর্ষক একটি প্রয়োজনীয় গ্রন্থ। পিনাকী তাঁর যাপিত-জীবনের অভিজ্ঞতা-প্রজ্ঞা আর লেখকের দায়বদ্ধ দৃষ্টিকোণ থেকে গ্রন্থটি লিখেছেন। বাংলাভাষায় তো বটেই, বিশ্বের অন্যকোনো ভাষায় ‘মেডিক্যাল রিপ্রেজেন্টেটিভ’দের জন্য দিকনির্দেশনা দিয়ে গ্রন্থ রচিত হয়েছে বলে জানা নাই। ফলে মেডিক্যাল রিপ্রেজেন্টেটিভদের অবশ্য সংগ্রহযোগ্য এই গ্রন্থ।
বইটি প্রকাশ করেছে, ভাষাচিত্র, ৩৮/৪ বাংলাবাজার, ২য় তলা, ঢাকা ১১০০। তৌহিন হাসানের চাররঙা প্রচ্ছদে গ্রন্থটির মূল্য মাত্র ১৫০ টাকা।