বঙ্গবন্ধুর বই পেলো সীমান্ত গ্রন্থাগারের পাঠকরা

রবিবার, ১০ জানুয়ারি ২০২১ | ৫:২০ অপরাহ্ণ | 125 বার

বঙ্গবন্ধুর বই পেলো সীমান্ত গ্রন্থাগারের পাঠকরা

মুজিববর্ষ উপলক্ষে ‘পড়ি বঙ্গবন্ধুর বই, সোনার মানুষ হই’ শীর্ষক ধারাবাহিক পাঠ কার্যক্রমে বিজয়ী শিক্ষার্থীদের হাতে বঙ্গবন্ধুর লেখা তিনটি বই, সনদ ও পুরস্কার তুলে দেওয়া হয়েছে। শনিবার  বিকেলে পুরান ঢাকার গেণ্ডারিয়ার বাতিঘর সীমান্ত গ্রন্থাগারের সাহারা মঞ্চে এই পুরস্কার দেওয়া হয়।

অনুষ্ঠানে কথাসাহিত্যিক ইমদাদুল হক মিলন এবং জাতীয় গ্রন্থকেন্দ্রের পরিচালক মিনার মনসুর আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন। সীমান্ত গ্রন্থাগারের সভাপতি মোর্শেদ আহমেদ চৌধুরীর সভাপতিত্বে এবং মানজার চৌধুরী সুইটের সঞ্চালনায় বীর মুক্তিযোদ্ধা ম. হামিদ, সীমান্ত গ্রন্থাগারের সাধারণ সম্পাদক কাজী সুলতান আহমেদ ও মো. শাহনেওয়াজ অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন।

ইমদাদুল হক মিলন বলেন, ‘সীমান্ত বাতিঘর আমাকে দ্বিতীয়বার জন্ম দিয়েছে। যদি সীমান্ত গ্রন্থাগার না থাকত তাহলে আজকে ইমদাদুল হক মিলনের জন্ম হতো না। আমি গৌরব বোধ করি যে এই গ্রন্থাগারের বই পড়ে পড়ে আমি বড় হয়েছি বা কিছুটা লেখক হয়ে উঠেছি। এখানেই আমার নাড়ি পোঁতা রয়েছে।’ তিনি আরো বলেন, ‘বই প্রাথমিকভাবে কোনো কাজ করে না। তবে মনের ভেতরটা বদলে দেয়, অন্তরটাকে আলোকিত করে। সুন্দর জায়গাটা বই তৈরি করে দেয়। অন্তরের আলোয় যে মানুষটি আলোকিত হয়, সে-ই প্রকৃত মানুষ।’

মিনার মনসুর বলেন, ‘সীমান্ত বাতিঘর ইমদাদুল হক মিলনের মতো বাতি তৈরি করেছে, যার আলোয় আজ দেশ আলোকিত হচ্ছে। বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা টিকিয়ে রাখার জন্য সোনার মানুষ লাগবে।’

অনুষ্ঠানে ১১ শিক্ষার্থীর হাতে পুরস্কার হিসেবে বঙ্গবন্ধুর লেখা বই ‘অসমাপ্ত আত্মজীবনী’, ‘কারাগারের রোজনামচা’ ও ‘বঙ্গবন্ধুর নয়াচীন দর্শন’, দুই হাজার টাকার চেক এবং জাতীয় গ্রন্থাগারের সনদপত্র তুলে দেওয়া হয়। পুরস্কারপ্রাপ্ত শিক্ষার্থীরা হলেন তাসনিম চৌধুরী প্রমা, মৃত্তিকা আনোয়ার প্রভা, ফেরদৌস হান্নান স্বপ্নীল, ধ্রুব জ্যোতি আহসান, জোয়ান অব আর্ক, ডমিনিকা কৃপা হালদার, প্রমা ঘোষ, সারাহ তামান্না, রিয়াদুস জাওয়াদ, শাফায়াত রহমান সিনহা ও প্রশান্ত কুমার দাস।

Facebook Comments Box