বইয়ের দোকান

দেশের সকল জেলায় বই বিপণনের স্বপ্ন নিয়ে চলছে নির্বাচিত

বৃহস্পতিবার, ০২ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৮:০৩ অপরাহ্ণ | 620 বার

দেশের সকল জেলায় বই বিপণনের স্বপ্ন নিয়ে চলছে নির্বাচিত

গত শতকের আশির দশকে অমর একুশে বইমেলায় কবিতার বইও বিক্রি হতো ১০০০ কপি। অথচ সমসাময়িক সময়ে প্রকাশকরা ফিকশন বলুন বা ননফিকশন ৩০০ কপির ওপর ছাপতেই ভরসা পান না। তবে কী দেশে জনসংখ্যা কমে গেল আর সেইসাথে আনুপাতিক হারে পাঠকের সংখ্যা? সে আশাতেও গুঁড়েবালি। তাহলে সমস্যাটা কোথায়?

 

বইসংশ্লিষ্ট মানুষদের সঙ্গে কথা বলে বোঝা গেল, সমস্যাটা মূলত বিপণন ব্যবস্থায়। বই কী পণ্য নাকি শিল্প এই দ্বন্দ্বেই সংশ্লিষ্টদের লেজে-গোবরে অবস্থা। বাংলাদেশে ব্যক্তি মালিকাধীন যে কয়টি বিপণি প্রতিষ্ঠান আছে তারাও ব্যবসা শুরু করে ভুলে গেছেন দেশীয় প্রকাশনা শিল্পের কথা। রাজধানী পেরিয়ে জেলাশহর এমন কী বিভাগীয় শহরগুলোতে খোঁজ নিলে জানা যায়, বইয়ের দোকানগুলোতে মূলত বিক্রি হয় পাঠ্যপুস্তক, সেইসাথে কিছু চাকরির গাইড বই। সৃজনশীল সাহিত্য খুঁজতে গেলে সন্ধান মেলে হুমায়ূন আহমেদ, জাফর ইকবালদের মতো জনপ্রিয় কিছু লেখকের অল্প কিছু বই এবং পাইরেটেড কিছু চিরায়ত সাহিত্য।

 

বইয়ের বিপণনসংক্রান্ত এই সমস্যায় প্রান্তিক অঞ্চলের পাঠক পছন্দের বই পাচ্ছে না। বাংলাদেশের অসংখ্য প্রকাশকও তাদের কাঙ্ক্ষিত পাঠক পাচ্ছে না। সৃজনশীল সাহিত্য এসে ঠেকেছে এক তথৈবচ অবস্থায়! বিপণন ব্যবস্থার এই যখন দশা তখন অন্ধকারে প্রদীপ হাতে এগিয়ে এসেছে সাহসী একটি প্রতিষ্ঠান। বাংলাদেশী সৃজনশীল এবং সুসাহিত্যকে সারাদেশে সাশ্রয়ী মূল্যে, ন্যূনতম সময়ে পাঠকের হাতে পৌঁছে দেবার স্বপ্ন নিয়ে তাঁরা শুরু করে ‘নির্বাচিত’ নামের একটি বই বিপণন সংস্থা। ২০২০ সালের ২৫ জানুয়ারি যাত্রা আরম্ভ করে শিশু অবস্থাতেই কোভিড ১৯- এর মুখে পড়ে প্রতিষ্ঠানটি ।

 

যাত্রাকালে এই প্রতিষ্ঠান শুরু করেছিল সারা দেশে একযোগে পাঁচটি শাখা উদ্বোধনের মাধ্যমে। রাজধানীর কাঁটাবন, উত্তরা, বিভাগীয় শহর খুলনা, বরিশাল ও সিলেট দিযে যাত্রাপথের শুরু হলেও পাঠক ও বইপ্রেমীদের আগ্রহের চাপে কুমিল্লা ও যশোরেও শাখা চালু করতে হয় তাদের । দোকানগুলোর সাজসজ্জা ও সংগ্রহ এরইমধ্যে পাঠকের তুষ্টি অর্জন করেছে। এখানে এসে পাঠক বই দেখে পছন্দ করে সংগ্রহ করতে পারবে, চাইলে সারাদিন পড়তে বা গবেষণা করতে পারবে এবং তাদের নির্দিষ্ট নম্বরে কল করে ঘরে বসে বই হাতে পেতে চাইলে রয়েছে হোম ডেলিভারী পদ্ধতি। লকডাউনকালে সীমিত পরিসরে হোম ডেলিভারী ব্যবস্থাও সচল রেখেছিল প্রতিষ্ঠানটি।

 

গত দেড়বছরের প্রত্যাশা ও প্রাপ্তির প্রশ্নে প্রতিষ্ঠানটির হেড অফ অপারেশন আদনান কবীর জানান, ‘পাঠকের হাতে প্রত্যাশিত বই তুলে দেবার আনন্দ অপরিসীম। আমরা যে স্বপ্ন থেকে যাত্রা শুরু করেছিলাম তা পূরণের পথেই আছি। আমরা চেয়েছিলাম নির্বাচিত সৃজনশীল সাহিত্যগুলো সারাদেশে পাঠকের কাছে পৌঁছে দিতে। বাংলাদেশের সাহিত্যকে পশ্চিম বাংলার সাহিত্যের সাথে পাল্লা দিয়ে জিতিয়ে রাখতে আর তাই আমরা আমাদের আউটলেটসমূহে খুব বেশি ভারতীয় বই রাখছি না।’ আগামীতে এই প্রজেক্ট এর সাথে ই-কমার্স যুক্ত করার পরিকল্পনার কথা জানান তিনি এবং খুব শীঘ্রই রাজশাহীতে শাখা চালু করার কথা জানান।

 

করোনা প্রবাহে বৈশ্বিক সঙ্কটকালে এই প্রতিষ্ঠানটি যাত্রাকালেই কিছুটা বিপাকে পড়েছেন তবে হতাশ নন তারা। তাদের ধারণা মতে, দেশে এখনও সুসাহিত্যের চর্চা হয়, পাঠক এখনও বই পড়েন। পাঠকের হাতের কাছে বই পৌঁছে যাওয়ার জটিলতাগুলো অতিক্রম করতে পারলে অচিরেই বাংলাদেশী সাহিত্যে সোনালী অতীত ফিরিয়ে আনা সম্ভব বলে তারা মনে করেন। বর্তমানে বাংলাদেশের প্রকাশনা জগতে বই বিপণন সংক্রান্ত সমস্যাকে সম্ভাবনায় পরিণত করতে চায় ‘নির্বাচিত’। প্রকাশনা সংশ্লিষ্ট অসংখ্য মানুষ নির্বাচিত’র এই স্বপ্ন ও সম্ভাবনাময় যাত্রাপথকে স্বাগত জানিয়েছে।

 

 

ঢাকা ও বিভিন্ন বিভাগীয় শহরে এখনও পর্যন্ত নির্বাচিত আউটলেট সাতটি। এই প্রতিষ্ঠান স্বপ্ন দেখছে বাংলাদেশের ৬৪টি জেলায় একটি করে নির্বাচিত আউটলেট চালু হবে শিগগিরিই।

 

 

বর্তমানে যেসব জায়গায় নির্বাচিত আউটলেগুলো চালু আছে সেগুলো হলো :

> নির্বাচিত ।। রাজউক কমার্শিয়াল কমপ্লেক্স (৩য় তলা), সেক্টর-৭, উত্তরা, ঢাকা
> নির্বাচিত ।। কনকর্ড এম্পোরিয়াম শপিং কমপ্লেক্স, কাটাবন, ঢাকা
> নির্বাচিত ।। নেহার মার্কেট (২য় তলা), পূর্ব জিন্দাবাজার, সিলেট
> নির্বাচিত ।। জলিল স্মরণী, বয়রা বাজার, ব্যাংক এশিয়া বিল্ডিং (২য় তলা), খুলনা
> নির্বাচিত ।। বি এম কলেজ রোড, (কলেজিয়েট স্কুল সংলগ্ন), বরিশাল,
> নির্বাচিত ।। ৫, নতুন গ্যালারি, স্টেডিয়াম মার্কেট, এম এম কলেজ, (আসাদ গেট সংলগ্ন) যশোর
> নির্বাচিত ।। এভারগ্রিন খাদিমিজিয়া মিউজিয়াম, (লাজ ফার্মার ২য় তলা), মনোহরপুর, কুমিল্লা
দেশের বই পোর্টালে লেখা ও খবর পাঠাবার ঠিকানা : desherboi@gmail.com
Facebook Comments Box