কালিতে আঁকা রেললাইন

রবিবার, ২৪ জানুয়ারি ২০২১ | ৪:৫৭ অপরাহ্ণ | 152 বার

কালিতে আঁকা রেললাইন

‘প্রতিদিনের কবিতা’ দেশের বই-এর নতুন আয়োজন। এই আয়োজনে প্রতিদিন তরুণ কবিদের একগুচ্ছ কবিতা প্রকাশ করা হয়। আজ প্রকাশিত হলো সৌরিন ব্যানার্জীর কবিতা


 

এ স্বর্গ নিগ্রহ এক

অচল কিছু গাছ একঘরে
তোমার আমার শরীরে
খড়কুটো হয়ে রয়
ব্রহ্মাণ্ড থেকে স্বর্গলোক-
একই রক্ত-বিষাদ-সংগ্রাম!

বুকে জেগে ওঠা সমুদ্র ছাপিয়ে
করণিক ছোটে নাবিক হয়ে-
সমুদ্র কোথায় চলে যায়!

হায়! এ স্বর্গ বিগ্রহ এক
সুখস্তুপের দরাদরি
এগাছ-ওগাছ -অচল সবই

হায়! এ স্বর্গ নিগ্রহ এক
শেষ যে হয়নি
শেষ নেই যার
কাল থেকে কালে চলেছি
কেতাদুরস্ত- মগ্ন এক।

এ বছরের মতো

আরো এক প্রসাদ-বৃক্ষ রেখে যাও,
এ বছরের মতো এ রাতে গুটিয়ে নাও ঘাতক আঁচল,
যা ছিল তোমার-
আমি আসব আবার
দণ্ডিত শীতের কুয়াশায় চেপে
নতুন কোনো হাতে-অকাল অঘ্রাণে
এই নিমজ্জমান মহল্লায়
আমায় ফেলা অসম্ভব

এ বছরের মতো ঠোঁট শুকিয়েছে
হাত ফিরিয়েছে পুরনো হাত
দোকানে দোকানে মর্মাহত ডালভাত- এনে দিল

ভরপেট দুরাশা,
ফেরার পথ জীর্ণ
জীর্ণ যেমন সবুজ দুঃখ- সবুজ তবুও আশার রঙ!
উদ্যান থেকে উদ্যান ভরা বহুমূত্র আর মিত্র
কি যেন বলে ওঠে ফুটপাত!

পর্যাবৃত্ত মানুষের হাজারো পা
চেনে আমায়, আমি চিনিনি ধর্ম তাদের-
আমায় এঁকেছে চারুশিল্পি, নগর থেকে নগর
একা শীতে;
ব্লাংকেটের দোকানে শুয়ে রুহানিরা কাঁপে-
সময় বলেছে ‘আছি’!

এ বছরের মতো তুমি ফুরিয়েছো-
এই এমন শীত আর না হয়,
এবারের মতো হারালাম অন্য সবুজ গ্রহে।

আমাদের পোষে আর প্রাণী নেই

চোখে চোখে অনবরত শরৎ
ছুটে আসে
দুই ছাদে মুখোমুখি দুই পৃথিবী
দৃষ্টিহীন স্মৃতিভ্রম
সাদা কাক আর বস্ত্রপ্রধান যে নগর
নাগরিক বেশে অভিমান ছুড়ে যায়
তোমার শহর।

বসে থাকা নির্বাক নদী
মাটি ছেড়ে যত যায় দূর
আমি গিয়েছি ততোটা

কিংবা
তারও বহুদূর বারবার
মাতৃকোষের মতো ভাগ হয়েছে
ততো আমাদের সুর
আমি আর কাকেই বা চিনি!

আকাশ খুলে খুলে পড়ে যতদিন সতীর দেহাংশের মতো
দুহাত ভরে ভাবি আকাশ পুষব
আমাদের পোষে আর প্রাণি নেই
তবু আকাশ ছুটছে দূরপাল্লার ট্রেনে
কালিতে আঁকা রেললাইন ধরে; কে কার পোষ মানে
একবার ছাড়া পেলে!


দেশের বই পোর্টালে লেখা ও খবর পাঠাবার ঠিকানা : desherboi@gmail.com

Facebook Comments Box