দেশের বই ঈদ সাময়িকী

আশিকুর রহমান-এর দুইটি কবিতা

সোমবার, ০৯ মে ২০২২ | ৪:৩১ অপরাহ্ণ | 85 বার

আশিকুর রহমান-এর দুইটি কবিতা

ভাষাচিত্র বুক ক্লাব আয়োজিত শুক্রবারের কবিতা শীর্ষক আয়োজন থেকে বাছাইকৃত কবিতা নিয়ে প্রকাশিত হচ্ছে “দেশের বই ঈদ সাময়িকী”। আজ প্রকাশিত হলো আশিকুর রহমান-এর দুটি কবিতা


 

[১]
হতভাগা জাতি

রমজান এলে মুসলিম হয় ইহারা এক মাসের,
নামায, কালাম, দান-খয়রাত উপচে পড়ে এদের।
পঙ্গপালের মতো ছুটে এসে মসজিদে ভিড় করে,
গোয়ালঘরের গরু যেন এরা ঠেলাঠেলি করে মরে!
যায় রমজান যবে, হায়! দেখি সব বকধার্মিক-
গরীবের হক মেরে খায়; মারে মজুর পারিশ্রমিক!
ছাড়িল কোরান, ছাড়িল নামাজ, ভাবে – “একমাস ধরে
এবাদত বহু করেছি খোদার – ঋণ দিনু শোধ করে!”
রমজান এলে একমাস খাঁটি মুসলিম বনে যায় ,
শয়তানও বুঝি ভণ্ডামি দেখে লাজে মুখ ঢেকে পালায়!
যাকাত দিয়েছে? – যাকাত তো নহে গরিবেরে কৃপা করে,
ইসলাম কহে যাকাত পৌঁছে দিতে গরীবের ঘরে।
যাকাত, – উহা তো দয়া নহে কভু, গরীবের অধিকার,
যাকাত অস্বীকারে কেবা? – আজি ঘর লুট করো তার!
ধনিকের দল ঘরে ঘরে তোলে ধনের পাহাড় গড়ি’,
পোলাও, কোর্মা গিলিয়া নিত্য বানাতেছে মোটা ভুঁড়ি।
এদিকে অন্ন না পেয়ে অভাবী হলো কঙ্কালসার,
জোঁক সম শোষে দারিদ্র্য – হাড্ডি দেহ ফুঁড়ে হলো বা’র!
দু’মুঠো অন্ন না পেয়ে মরেছে শিশু দুঃখিনী মা’র,
খালিদের অসি বানায়েছি লয়ে শিশু পাঁজরের হাঁড়!
অন্ধের মতো মারো সব লোভী দৈত্য, দানব, অসুর,
সমাজ হইতে এসব শোষককে লাথি মেরে করো দূর!

 

 

[২]
আশা-তরী
[আংশিক]

হে নবযুগের অভিযাত্রী! – যদি কাঁপো থরথর করি,
অশান্ত যদি হও তবে আরও চঞ্চল হবে তরী।
ভয় পেয়ো নাকো, নিরাশ হয়ো না, আল্লা মোদের প্রভু,
তাঁর ’পরে যে বা ভরসা রেখেছে, – ছেড়ে যান নাকো কভু!
উন্মত্ত এ সিন্ধুতে তরী পার করিবার ভার–
তাঁর হাতে, যদি চান, পার হবো দুস্তর পারাবার!
ডুবে যদি মরি মাতাল সাগরে, – সেও তাঁর ইচ্ছায়,
প্রাণ নিয়ে স্থান দেবে খোদা শহিদী মর্যাদায়!
প্রাণ যদি নিতে চান, তবে কেন বাধা দেবো মোরা তাঁর?
আল্লার প্রাণ আল্লারে দাও! – এ তো তাঁর অধিকার।
বেঁচে যদি পাড়ি দিতে পারি, তবে তাঁর ইচ্ছায় গাজী,
মুসলিম সেই! আল্লার ‘পরে সর্বদা রয় রাজি!
তাঁর ফয়সালা সর্বদা মানে, তারে ‘বিশ্বাসী’ কয়,
অসন্তুষ্ট হয় কিঞ্চিৎ, সে তো মুসলিম নয়!
যাহারা মুমিন, ‘বিশ্বাসী’ – যদি তাঁর পরীক্ষা আসে,
হাসিমুখে মেনে লয়, প্রয়োজনে প্রাণ দান করে হেসে!
লোভনীয় নহে ইহাদের কাছে দুনিয়াবী সম্পদ,
শহিদ হয়ে তবু চাহে নাকো ওরা বেহেশতী নেয়ামত!
প্রাণ দিয়ে ওরা বেহেশতে গিয়ে ফিরিতে চাহে আবার,
অমৃত-সম শহিদী পেয়ালা পি’তে চায় বারবার!

Facebook Comments Box