“ আমরা হেঁটেছি যারা ” মুক্তিযুদ্ধ পরবর্তী অস্থিতিশীল রাজনীতির সত্য বাহক

বৃহস্পতিবার, ২৮ অক্টোবর ২০২১ | ৩:৩২ অপরাহ্ণ | 78 বার

“ আমরা হেঁটেছি যারা ”  মুক্তিযুদ্ধ পরবর্তী  অস্থিতিশীল রাজনীতির সত্য বাহক

আমরা হেঁটেছি যারা
লেখকঃ ইমতিয়ার শামীম
জনরাঃ উপন্যাস
প্রকাশনীঃ পেন্ডুলাম পাবলিশার্স

#সিনোপসিস
উপন্যাসটির কথক তথাগত , একজন মুক্তিযোদ্ধার সন্তান , মুক্তিযুদ্ধ পরবর্তী সময়ের তথাকথিত রাজনীতির আক্রোশের নিরব দর্শক হয়ে রুপায়ন করে গেছেন সেই সময়ের হারিয়ে যাওয়া গুপ্ত এবং সত্য তিক্ত অতীত ইতিহাসকে । আগে যে ঘুমের মাঝে বাস্তবিক দুঃস্বপ্ন এনে দিতো পাক হানাদার বাহিনীর আকস্মিক আঘাত ,  আজ মুক্তিযুদ্ধের পর সেই ক্ষত স্থানে আবার আঘাত আসে রক্ষী বাহিনীর নির্মম পদচারণায় । মুক্তিযুদ্ধের সেই গৌরবান্বিত চেতনাগুলো নিষ্প্রভ হয়ে যায় রাজনৈতিক প্রতিহিংসা আর ক্ষমতার খেলায় । তথাগতেরা সেই খেলার বলি হয়ে পাড়ি জমায় অনিশ্চয়তায় , কখনো সেই পথ থাকে মূল্যবোধের বাহিরে আবার কখনো সেই পথই একসময় রুখে দাঁড়ায় সব অন্যায়ের প্রতিবাদে ।

#পাঠ_পর্যালোচনা
“ আমরা হেঁটেছি যারা ” উপন্যাসটি মুক্তিযুদ্ধ পরবর্তী সময়ে বাংলাদেশের অস্থিতিশীল রাজনীতির একজন সত্য বাহক । এখানে একজন মুক্তিযোদ্ধার জীবন শঙ্কিত সরকারের রক্ষী বাহিনীর অন্যায় আবদারে , তবুও সেই মুক্তিযোদ্ধা রক্ষী বাহিনীর প্রধানের ছবি ঘরে রাখেন তার প্রতি সম্মান আর ভালবাসার নিমিত্তে । আবার কোথাও বুড়ো রিকশাওয়ালার কাধে বোঝা হয়ে শিক্ষার্থীরা ছুটে চলে প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষায় যেখানে খাওয়ানো হয় মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস আর সেই বুড়ো রিকশাওয়ালা তখনও সমাজের ঘানি টেনে বেড়ায় একজন মুক্তিযোদ্ধা হয়ে । সমাজের এই অবাক নিয়মের সাক্ষী উপন্যাসের তথাগত । উপন্যাসের প্রতিটি অধ্যায় এক একটি রাজনৈতিক দলিল যেখানে উঠে এসেছে সমাজ ও রাষ্ট্রতান্ত্রিকের দ্বৈত মিথ্যে ও সত্যের চিত্র।
উপন্যাসের ঘটনাপ্রবাহ বেশ গতিশীল। ৭২ থেকে ৭৫ এর পরবর্তী সময়গুলোকে একসাথে আনার পরেও সত্য প্রকাশের জৌলসতা কিঞ্চিৎ কমেনি বরং সময়ের পরিবর্তনের প্রেক্ষাপটের সাথে সাথে নোভেলটি আরো বেশী পরিপক্ক মনে হয়েছে । এর সাথে প্রতিটি সামাজিক আবহকেও সমানভাবে একসাথে এনেছেন ইমতিয়ার শামীম , কখনো ধর্মের বুলিতে মিথ্যের বাণী , কখনো অর্থ সম্পদের প্রতিহিংসের লড়াই আবার কখনো মামুনের মতো চরিত্রগুলোর অন্যায়ের কাছে অসহায় আত্নসমর্পণ ।
মুক্তিযুদ্ধের সময়ের চেতনাকে বুড়ো আঙুল দেখানো সমাজে তখন রাজনৈতিক অহিংসার প্রতিযোগিতা বিদ্যমান । যুদ্ধ শেষ হলেও এখনো নারীর বিবস্ত্র মৃত দেহ পড়ে থাকে কোনো ধানী জমিতে, এখনো গুম হয় সত্যের বাহকেরা , এখনো বুট জুতোর শব্দে রাতের পাখিগুলোও বালিশে মুখ চেপে ধরে অস্ফুট আতঙ্কের ভয়ে । উপন্যাসে এই সেটিংসগুলো লেখকের প্রানবন্ত উপস্থাপনায় বেশ উদ্দীপনা তৈরী করেছে পড়ার মাঝে । প্রকৃতির বিবরণের সাথে সমাজ ও রাজনৈতিকের জীবনের উপর কোনো লেখা যে কতোটা শক্তিশালী হতে পারে তার উদাহরণ এই বইটি ।

#লেখক_কথা
এইবার লেখক ইমতিয়ার শামীমের লেখা নিয়ে আমার কিছু কথা । ইমতিয়ার শামীম লেখার জগতে বেশ পুরোনো হলেও আগে তার লেখা আমার পড়া হয় নি , এই প্রথম বার তার লেখা পড়েই বুঝলাম লেখালেখি তিনি অর্জন করেননি বরং সাহিত্যই তাকে খুঁজে নিয়েছে সঠিক আশ্রয় হিসেবে। প্রতিটি ঘটনার সাথে বাস্তবতার প্রতিফলন এনে খুব সূক্ষ দৃষ্টিতে তার প্রকাশ ঘটানো কোনো সহজতর কাজ নয় তবে লেখকের লেখায় তা বেশ সরবভাবেই উঠে এসেছে । চরিত্রায়ন, গল্পের গাঁথুনি ,উপমার ব্যবহার অথবা তথাদতের ন্যারেটিং ,এমনকি চরিত্রগুলোর কাল্পনিক চিন্তাগুলোর উপস্থাপনাগুলো এতোই রিয়েলিষ্টিক ছিলো মনে হয়েছে যেনো আমিও সেই চরিত্রগুলোর একটি । এতোটা নিখুঁত কাজ এখন সচরাচর পাওয়া বেশ দুঃস্কর । এটি এমন একটি বই যা আপনাকে পড়তেই হবে একজন পাঠক হিসেবে,একজন নাগরিক হিসেবে…
★★HIGHLY RECOMMENDED★★


[ বই-পুস্তক-প্রকাশনা এবং বাংলাদেশের প্রকাশনা জগতের যে কোনো সংবাদ প্রকাশের জন্য সংশ্লিষ্ট ছবিসহ আমাদের ই-মেইল করতে পারেন : desherboi@gmail.com ]

Facebook Comments Box